প্রতিমন্ত্রী, সাংসদ ও ছাত্রলীগ সভাপতিকে কুড়িগ্রাম সমিতির সংবর্ধনা

কুড়িগ্রাম সমিতি কর্তৃক জেলার কৃতি সন্তানদের দেওয়া সংবর্ধনা খবর জাতীয় দৈনিক সমকালে

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, কুড়িগ্রামের দুই সাংসদ ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি মো. রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সংবর্ধনা দিয়েছে ঢাকায় বসবাসরত কুড়িগ্রামবাসীদের সংগঠন কুড়িগ্রাম সমিতি।

শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কুড়িগ্রাম জেলার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন পেশাজীবী ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে কুড়িগ্রামবাসীর মিলনমেলায় পরিণত হয়েছিল এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কুড়িগ্রাম জেলার কৃতি সন্তান যারা এখন বেঁচে নেই তাদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সমিতির মহাসচিব মো. সাইদুল আবেদীন ডলার আগত অতিথিদের স্বাগত জানিয়ে কুড়িগ্রামের উন্নয়নে সমিতির বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরেন।

কুড়িগ্রাম সমিতির মহাসচিব মো. সাইদুল আবেদীন ডলার তার বক্তব্যে বলেন, রাজনীতিবিদ ছাড়া এলাকার সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। রাজনৈতিক, সামাজিক এবং প্রশাসনিক-এই তিন সেক্টরের ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে আমাদের কুড়িগ্রামকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে কাজ করতে হবে। কুড়িগ্রাম জেলার অখণ্ডতা রক্ষার্থে রৌমারী, রাজীবপুরের সঙ্গে সংযোগ সেতু এবং ক্ষুদ্র ঋণের চক্র থেকে কুড়িগ্রামের দরিদ্র মানুষদের মুক্তির দাবিও জানান তিনি।

আমন্ত্রিত অতিথির বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেন, কুড়িগ্রামে এখন আর মঙ্গা নেই, কুড়িগ্রাম আর অবহেলিত নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুনজর রয়েছে কুড়িগ্রামের প্রতি। দীর্ঘ দিন পরে হলেও কুড়িগ্রামের ৪টি আসনের মধ্যে ৩টিতে ক্ষমতাসীন দলের সাংসদ নির্বাচিত হয়েছে। তাই এবার কুড়িগ্রামের উন্নয়ন আরও ত্বরান্বিত হবে।

কুড়িগ্রাম-২ আসনের সাংসদ মো. পনির উদ্দিন আহমদ বলেন, কুড়িগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আমরা বদ্ধপরিকর। এই জেলার ৪ জন সাংসদসহ সবাই মিলে আমরা কুড়িগ্রামকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবো।

কুড়িগ্রাম-১ আসনের সাংসদ মো. আসলাম হোসেন সওদাগর বলেন, ১০০ ভাগ পবিত্রতা নিয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করবো। আমি নবীন সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছি, তাই নিজেকে প্রমাণের জন্য এলাকার উন্নয়নের জন্য আমাকে ব্যাপক কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি মো. রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, আমি আজ ছাত্রলীগের সভাপতি হলেও আমি এই কুড়িগ্রামের সন্তান, আপনাদের সবার সন্তান। আমি যেনো কুড়িগ্রামের উন্নয়নে অবদান রাখতে পার সেজন্য আপনাদের দোয়া চাই। কুড়িগ্রামকে মডেল জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

সংগঠনের সভাপতি প্রকৌশলী মো. মতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম মঞ্জু মন্ডল, রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের বাবা-মা এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

Add Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *